নওগাঁয় আলু চাষে ঝুঁকছেন কৃষকরা

0
20
সবজি চাষ





লাভজনক হওয়ার কারণে দিন দিন আলু চাষে ঝুঁকছেন নওগাঁর কৃষকরা। আগাম জাতের আলুতে লাভ বেশি হওয়ায় এ জাতের আলু চাষে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকরা। শুরু থেকে আবহাওয়া ভালো থাকায় এবার আলুতে ভালো লাভের আশা করছেন তারা। চাষিদের মতে, বৃষ্টি না হলে চলতি মৌসুমে প্রতি বিঘা জমি থেকে ২০-২২ মণ হারে ফলন হবে।

জানা যায়, শীতের আগাম সবজি হিসেবে আলুর ভালো দাম পেতে চাষিরাও ব্যস্ত সময় পার করছেন। কেউ জমি চাষ করছেন, আবার কেউ জমি সমান করতে মই দিচ্ছেন। কেউ জমির আইলের ঘাস পরিষ্কার করছেন। কেউ জমিতে আলুর বীজ রোপণ করছেন। আগাম এই নতুন জাতের আলুর ভালো দাম পাওয়ার আশায় দিনরাত কাজ করছে চাষিরা। আগাম জাতের আলু কার্তিক মাসে রোপণ করা হয়। প্রায় দুই মাসে এই আগাম জাতের আলু বাজারে পাওয়া যায়।

কৃষক আমজাদ হোসেন বলেন, আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে আলুর বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করছি। প্রথম দিকে ১০০ টাকা কেজি থেকে শুরু হলেও পরবর্তীতে আলুর আমদানি বেশি হলে ৩০ থেকে ৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়। আগাম জাতের আলুর ফলন কিছুটা কম হলেও দাম বেশি পাওয়ায় পুষিয়ে নেয়া যায়।

আরেক কৃষক জয়নাল আবেদিন জানান, চলতি মৌসুমে তিন বিঘা জমিতে ফাটাপাপরি আগাম জাতের আলু চাষ করেছি। আলু রোপণ করা প্রায় ৪৫ দিনের মতো হয়েছে। আর ২০ থেকে ২৫ দিনের মধ্যে নতুন আলু ওঠা শুরু হতে পারে।

জেলার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক শামসুল ওয়াদুদ বলেন, এ জেলার বিভিন্ন জাতের আলু চাষ হয়। এই কারণে অনেক আলু আগে আসবে আবার অনেক আলু পরে আসবে। যে আলু আগাম আসবে বাজারে সেটার দাম বেশি। কৃষকরা যদি আগাম আলু চাষ করে সেক্ষেত্রে লাভবান হবেন।


আরও পড়ুনঃ কিশোরগঞ্জে শীতকালীন সবজি চাষে ব্যস্ত কৃষকরা


কৃষি প্রতিবেদন / আধুনিক কৃষি খামার







Source link